ইমাম হুসাইন (আ.)-এর রক্তরঞ্জিত শাহাদাত : প্রেক্ষিত, উদ্দেশ্য ও প্রভাব

ইমাম হুসাইন (আ.)-এর রক্তরঞ্জিত শাহাদাত : প্রেক্ষিত, উদ্দেশ্য ও প্রভাব

ইমাম হুসাইন (আ.)-এর পরিচিতি


 

চতুর্থ হিজরির ৩ শাবান মদীনা মুনাওওয়ারায় বিশ্বনবি হযরত মুহাম্মাদ (সা.)-এর প্রাণপ্রিয় দুহিতা হযরত ফাতেমা (আ.)-এর কোলে জন্মগ্রহণ করে এক পুত্রসন্তান।যাঁর জন্ম কেবল বিস্ময়কর ও অসাধারণই ছিল না, তাঁর গোটা জীবনকাল ও গৌরবময় শাহাদাত ছিল অশেষ রহস্যে পরিপূর্ণ। তাঁর মাতা যদি সক্ষম হতেন তাহলে তাঁকে দুধ পান করাতেন। ইমাম হুসাইন (আ.) তাঁর নানা রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর জিহ্বা ও আঙ্গুল চুষেই পরিতৃপ্ত হতেন, শান্ত হয়ে যেতেন।

রাসূলুল্লাহ্ (সা.) ইমাম হুসাইনকে কাঁধে বসাতেন এবং বলতেন : ‘এ বালক ও তার ভাই দুনিয়ায় আমার দু’টি সুগন্ধী ফুল (রায়হান)। তিনি বারবার বলতেন : ‘হুসাইন আমা থেকে, আর আমি হুসাইন থেকে।আরও বলতেন : ‘এরা দু’ভাই আমার আহলে বাইতের মধ্যে আমার সবচেয়ে বেশি প্রিয়।’ রাসূলুল্লাহ্ (সা.) তাঁদের সম্পর্কে বলতেন :‘হাসান ও হুসাইন বেহেশতের যুবকদের নেতা।

ইমাম হুসাইন (আ.) ইসলামের মহাবিদ্যালয়ে অর্থাৎ যে গৃহে জিবরীল (আ.) আয়াত নিয়ে অবতীর্ণ হতেন সেখানেই মহানবী (সা.)-এর পবিত্র কোলে এবং হযরত আলী ইবনে আবি তালিবের সান্নিধ্যে ও মা ফাতেমা যাহ্‌রার পবিত্র আঁচলের ছায়াতলে বড় হন। তাঁর শিক্ষার উচ্চ থেকে উচ্চতর স্তরে উত্তীর্ণ হন এ বিশ্ববিদ্যালয়েই। তাঁরই সহপাঠীবৃন্দ, যেমন হযরত সালমান ফারসি, হযরত মিকদাদ, হযরত আবু যার, হযরত ইবনে আব্বাস প্রমুখ তাঁর চেয়ে বয়সে বড় ছিলেন, কিন্তু মর্যাদার দিক থেকে তাঁর চেয়ে পিছিয়ে ছিলেন। যেমনটা আমরা জানি যে, ইবনে আব্বাস তাঁর নেতৃত্বে চলাকে নিজের জন্য গৌরবের কারণ বলে মনে করতেন এবং নিজেকে সৌভাগ্যবান ভাবতেন। হযরত আবু হুরায়রা তাঁর পবিত্র পদধূলি নিজের জামা দিয়ে মুছেছেন এবং এ কাজের জন্য গর্বও করেছেন। তিনি বর্ণনা করেছেন : ‘আমি স্বচক্ষে দেখেছি যে, হুসাইন তার দু’ পা রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর বুকের ওপরে রেখেছিল। আর রাসূল তাঁর জিহ্বায় চুমু দিচ্ছিলেন ও বলছিলেন : اللهم احبه فاني احبه ‘হে আল্লাহ্! একে তুমি ভালবাস। কেননা, আমি একে ভালবাসি।

ইমাম হুসাইন (আ.) হযরত আবু বকরের খেলাফতকালে যদিও মাত্র দশ বছরের এক বালক ছিলেন, তদুপরি বুজুর্গ সাহাবীবৃন্দের ফতোয়া ও জ্ঞান শিক্ষার আসরে অংশগ্রহণ করতেন।১০ সাহাবীবর্গ তাঁকে নিজেদের জায়গায় এনে বসাতেন এবং তাঁর প্রতি এতটা শ্রদ্ধা প্রকাশ করতেন যা আবদুল্লাহ্ ইবনে ওমর কিম্বা আবদুর রহমান ইবনে আবু বকরের প্রতি করতেন না। ইমাম হুসাইন (আ.) এমন এক গৃহে বেড়ে ওঠেন যে গৃহের অধিবাসীবৃন্দ (আহলে বাইত অর্থাৎ মহানবীর গৃহের অধিবাসী) সর্বস্ব ধর্মের পথে উৎসর্গ করতেন এবং এ পথে তাঁদের কোন রকম কার্পণ্য বা ভণ্ডামি ছিল না।

ইবনে আসাকির তাঁর তারীখে কাবীর গ্রন্থে, আহমাদ ইবনে সুলায়মান তাঁর ইকদুল লিয়ালী গ্রন্থে, মুবাররাদ তাঁর কিতাবে কামিল-এ, ফাখরুদ্দীন রাযী তাঁর তাফসীরে و علم آدم الاسماء (এবং আদমকে শিক্ষা দিলেন নামসমূহ)-এ আয়াতের ব্যাখ্যায়, মুহসিনুল হুসাইনী তাঁর লাওয়ায়িজুল আশজান গ্রন্থে, ইবনে কুতাইবা তাঁর উয়ুনুল আখবার গ্রন্থে, ইয়াকুত মুস্তাওসী তাঁর আল-জাওয়ায়িব গ্রন্থে ইমাম হুসাইন (আ.)-এর বদান্যতা ও দানশীলতার শত শত কাহিনী বর্ণনা করেছেন, যেগুলো আগেকার দিনে মানুষের মুখে মুখে উদাহরণ হিসাবে উচ্চারিত হত। ইমাম হুসাইন (আ.) পূর্ণতা ও পবিত্রতার এমন চরম শিখরে পৌঁছেছিলেন যে, মুবাহালার সেই অগ্নি পরীক্ষায় নাসারাদের বিরুদ্ধে তিনি দ্যুতিময় চেহারা নিয়ে উপস্থিত হয়েছিলেন। বিশ্বের সকল ঐতিহাসিকের অকপট স্বীকারোক্তি মোতাবেক ইমাম হুসাইন (আ.) জ্ঞান, সংযমশীলতা, সত্যনিষ্ঠতা, সাহসিকতা, পরোপকার, দরিদ্রদের পাশে দাঁড়ানো ইত্যাদি বিষয়ে তাঁর সময়ের মুসলমানদের মাঝে হুজ্জাত (দলিল-প্রমাণ) ও আদর্শের প্রতীক ছিলেন। সকলের আশ্রয়স্থলও ছিলেন তিনি। যেমনটা ‘আল হাসান ওয়াল হুসাইন’ গ্রন্থে লেখা হয়েছে : ‘সবদিক বিচারে তিনি তাঁর নানা রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর সাথে সবচেয়ে বেশি সদৃশ ছিলেন।’১১

ইমাম হুসাইন (আ.)-এর নিকট থেকে অনেক প্রসিদ্ধ দোয়া, অগণিত কারামাত ও অলৌকিক ঘটনা বর্ণিত হয়েছে। তাঁর প্রতি ভক্তদের নিরন্তর দরূদ, ভালবাসার প্রেমাশ্রু, অশেষ ভক্তি-শ্রদ্ধা প্রেরিত হয়ে আসছে। প্রতিদিন অসংখ্য মুসলমান তাঁর মাযারকে যিয়ারত করছে, সেই পবিত্র নাম মুসলমানদের অন্তরে চির জাগরুক রয়েছে। এক কথায় তিনি অশেষ ও অফুরন্ত বন্দনা ও প্রশংসায় অবিস্মরণীয় হয়ে রয়েছেন। মনে হয় ইমাম হুসাইন (আ.) তাঁর নিজের পরিচয় তাঁর শাহাদাতের পূর্ব মুহূর্তে এ একটি বাক্যের মাধ্যমেই সবচেয়ে সুন্দরভাবে ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেন :‘হে আল্লাহ্! তুমি জান যে, এরপর জমিনের বুকে তোমার নবি-দুহিতার কোন পুত্রই আর রইল না।’

বনি উমাইয়্যার পরিচয়


আরবের কোন গোত্রই বনি উমাইয়্যার মত স্বার্থপর ও অহঙ্কারী ছিল না। এ গোত্র বেড়েই উঠেছিল উগ্র স্বভাব, স্বার্থান্বেষী মনোবৃত্তি, বিলাসিতা ও আনন্দ-ফূর্তির কুশিক্ষা নিয়ে। জাহেলী যুগে এরা ছিল অর্থসম্পদ, শাসনক্ষমতা ও পদমর্যাদার কাঙ্গাল। ইসলামের আগমনের পর দীর্ঘ একুশ বছর এ গোত্র ইসলামের প্রধান ও প্রকাশ্য শত্রু” বলে গণ্য হয়েছে এবং ইসলামকে ধ্বংসের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়েছে। মক্কা বিজয়ের পর এ গোত্র পরাজিত হয়ে আত্মসমর্পণ করলে রাসূল (সা.) তাদের ‘তোলাকা’ (মুক্ত যুদ্ধবন্দী) বলে ঘোষণা করেন। আবু সুফিয়ান ছিল এ গোত্রের প্রধান। তাদের পূর্বোল্লিখিত বৈশিষ্ট্যের কথা চিন্তা করে মক্কা বিজয়ের প্রাক্কালে আবু সুফিয়ানের মর্যাদা বৃদ্ধি পায় এমন কোন কিছু করতে হযরত আব্বাস রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-কে পরামর্শ দিয়েছিলেন। রাসূল পরে তার গৃহকে নিরাপদ বলে ঘোষণা করেন। আর বনি উমাইয়্যার অর্থসম্পদের প্রতি মোহ থাকার কারণেই রাসূলুল্লাহ্ (সা.) গনীমতের মাল থেকে তাদেরকে অধিক হারে দান করতেন। উদাহরণস্বরূপ মক্কা বিজয়ের পর যেসব লোক ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন তাদের অন্যতম আবু সুফিয়ানের পুত্র মু‘আবিয়াকে হুনাইন যুদ্ধের গনীমত, যেগুলো নতুন মুসলমান ও দুর্বল ঈমানদারদের অন্তর জয় করার জন্য নির্ধারণ করা হয়েছিল অর্থাৎ ‘মুয়াল্লাফাতি কুলুবিহিম’-এর অংশ ছিল তা হতে একশ’ উট এবং বিপুল পরিমাণ রূপা প্রদান করা হয়। পরে তিনি মদীনায় গমন করেন এবং দুই বছরের কিছু বেশি সময় রাসূলের সাহচর্য লাভ করেন।১২

মানবের সুন্দর ও উন্নত চারিত্রিক গুণাবলির কোন কিছুই এ গোত্রের লোকদের মধ্যে ছিল না। ইসলামের আবির্ভাবের পরও তারা দুনিয়াবী ফায়দা নেই এমন কোন কাজে আত্মনিয়োগ করতে রাজি ছিল না। ইসলাম তাদের কাছে একটাই অর্থ বহন করত। আর তা হল বনি উমাইয়্যার ওপর বনি হাশিমের কর্তৃত্ব ও প্রভাব বিস্তার এবং রাসূলের নবুওয়াতকেও তারা এ দৃষ্টিতেই দেখত। ইসলামের ইতিহাসে এ কথার পক্ষে অনেক সাক্ষ্য রয়েছে। যখন আবু সুফিয়ান হযরত মুহাম্মাদ (সা.)-এর বিজয় ও মুসলিম সাম্রাজ্যের বিস্তার প্রত্যক্ষ করে তখন হযরত আব্বাস (রা.)-কে বলে : ‘তোমার ভাতিজার রাজত্ব তো বিশাল রূপ ধারণ করেছে!’ তাই প্রথম থেকেই তাদের একমাত্র লক্ষ্য ও সর্বাত্মক প্রচেষ্টা ছিল এ কর্তৃত্বকে ছিনিয়ে এনে নিজেদের হস্তগত করা।

রাসূলুল্লাহ্ (সা.) বনি উমাইয়্যার নেতৃস্থানীয় কোন ব্যক্তিকে কোন প্রশাসনিক কাজে নিযুক্ত করতেন না। কিন্তু রাসূলের ওফাতের পর দামেশ্‌ক বিজিত হলে বনি উমাইয়্যা প্রশাসনিক পদ লাভ করে। দ্বিতীয় খলিফার সময় দীর্ঘ প্রায় দশ বছর মু‘আবিয়া দামেশ্‌কের গভর্নর থাকায় তাঁর জন্য বনি উমাইয়্যাকে পৃষ্ঠপোষকতা করার সুযোগ সৃষ্টি হয়। হযরত উসমানের বার বছরের শাসনকালে তিনি আরও স্বাধীনতা লাভ করেন। কিন্তু যখন খেলাফত হযরত আলী (আ.)-এর হাতে আসে, তখন বনি উমাইয়্যা দীর্ঘদিনের প্রতিহিংসার আগুন প্রজ্বলন করে এবং হযরত ওসমানের রক্তের দোহাই দিয়ে ফেতনা ছড়াতে থাকে। প্রথম পদক্ষেপ হিসাবে মুহাজির ও আনসারদের ঐকমত্যে নির্বাচিত খলিফা আমীরুল মুমিনীন আলী (আ.)-এর বিরুদ্ধে যুদ্ধের পটভূমি রচনা করে। কিন্তু যুদ্ধে পরাজিত হয়ে পবিত্র কুরআনকে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করে ও কুটচালের মাধ্যমে নিজেদের ক্ষমতাকে সরল মুসলমানদের সামনে বৈধ বলে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা চালায় এবং সফলও হয়। দ্বিতীয় পদক্ষেপ হিসাবে আলী (আ.)-এর পক্ষ থেকে নিয়োজিত গভর্নর ও তাঁর ঘনিষ্ঠ সঙ্গী-সাথীদের হত্যার প্রক্রিয়া শুরু করে। যেমন তাঁর নিযুক্ত মিশরের গভর্নর মুহাম্মাদ ইবনে আবু বকরকে একটি মৃত গাধার চামড়ার মধ্যে ঢুকিয়ে ও পুড়িয়ে এবং অপর ঘনিষ্ঠ সঙ্গী মালিক আশতারকে বিষ প্রয়োগে হত্যা করা হয়।১৩

একদিকে বনি উমাইয়্যারা নিজেদের প্রভাব জোরদার করার জন্য ধোঁকাবাজি, মিথ্যাচার আর খেয়ানতের মাধ্যমে দুর্বল ঈমানের অধিকারী গোত্রপতিদের খরিদ করতে থাকে। অন্যদিকে যিয়াদ ইবনে আবিহ, বুশর ইবনে আরতত প্রমুখের ন্যায় নিষ্ঠুর ব্যক্তিকে প্রশাসনিক দায়িত্ব দেয় যারা যে কোন ধরনের অত্যাচার ও নিপীড়নকে বৈধ জ্ঞান করত। প্রখ্যাত মুতাযিলী পণ্ডিত ইবনে আবিল হাদীদ নাহজুল বালাগার ব্যাখ্যা গ্রন্থের তৃতীয় খণ্ডে লিখেছেন : ‘মু‘আবিয়া যিয়াদ ইবনে আবিহকে কুফা ও বসরার গভর্নর নিযুক্ত করে। সে যেহেতু হযরত আলী (আ.)-এর বন্ধুদের ভালভাবে চিনত, তাই তাদের এক-একজনকে ধরে হত্যা করত, তাদের চোখ উৎপাটন করে ফেলত এবং তাদের হাত-পা কেটে ফেলত।’ তার এ জুলুম তার থেকে দূরে অবস্থানকারী হেজাজের জনগণকেও আতংকগ্রস্ত করে রেখেছিল। এ প্রক্রিয়ার অংশ হিসাবেই মাইসামে তাম্মার, রুশাইদ হুজাইর, হুজর ইবনে আদি এবং আমর ইবনে হীমাক এর ন্যায় নিবেদিতপ্রাণ ও পরীক্ষিত নীতিবান মানুষকে হত্যা করা হয়। এভাবেই শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি সৃষ্টির মাধ্যমে জনগণের ক্ষোভকে তাদের বুকের মধ্যে বন্দী করে এবং আতংক ও সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে বনি উমাইয়্যা মানুষের জীবনকে ওষ্ঠাগত করে তোলে।

উমাইয়্যা আমলের জনজীবনের চিত্র


 

উমাইয়্যা আমলে সাধারণ জনজীবন, বিশেষ করে শাম ও মিশরের জনসাধারণের নৈতিকতার এত বেশি স্খলন হয় যে, বিখ্যাত ঐতিহাসিক মাসউদী এভাবে তার চিত্র তুলে ধরেন : ‘তারা কোন অসঙ্গত কাজ থেকেই বিরত থাকত না, সঙ্গত ও সুন্দর বলে কিছুই তাদের সামনে মূল্য পেত না, তাদের যাতায়াত মক্তব ও পাঠশালার পরিবর্তে ছিল খেয়ালী যাদুকর ও মিথ্যা কাহিনীকারদের আখড়ায়। যদি কোন সমাবেশ ঘটত তবে সেটা ছিল হয় কাউকে চাবুক মারার অনুষ্ঠান অথবা কাউকে ফাঁসিতে ঝুলানোর অনুষ্ঠান। অকাজ-কুকাজেই তাদের ছিল সমস্ত অনুপ্রেরণা ও উৎসাহ। আর সাধারণভাবে কুকাজকে সুকাজের সাথে এক করে দেখা হত। দীনদারকে কাফের বানাতে তাদের কোনই দ্বিধা ছিল না। অর্থাৎ রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর ভাষায় যে বলা হয়েছে : এমন নড়বড়ে মানুষ যাদের ঈমান ছিল না, আবার বে-দীনও না। ঝুলন্ত ডালের মত, যা বাতাস যেদিক থেকে আসে, সেদিকেই দুলে যায়।’

ইমাম হুসাইন (আ.) তৎকালীন জনগণের নৈতিক অধঃপতনের প্রতি ইশারা করেছেন এভাবে :
و الله لخذل فيكم المعروف و قد شجت عليه عروقكم و توارت عليه اصولكم

‘আল্লাহ্‌র কসম! হে জনগণ! যা কিছু উত্তম ও সঙ্গত তা তোমাদের মাঝে লাঞ্ছিত ও অপদস্ত হয়েছে, আর তোমাদের জীবনের শিকড় গেড়েছে সেই লাঞ্ছনার ভূমিতলে।’১৪

অবস্থা এতটা শোচনীয় হয়েছিল যে, যখন উমাইয়্যা শাসনের পতন ঘটে ও আব্বাসীয় খলিফা আবুল আব্বাস সাফফাহ্ শামের ক্ষমতা দখল করে, তখন আবদুল্লাহ্ ইবনে আলী, শাম বাহিনীর নেতৃস্থানীয়দের ধরে সাফফাহ্‌র কাছে নিয়ে যায়। সে সময়ে তারা সকলে মিলে কসম করে বলতে থাকে যে, তারা বনি উমাইয়্যা ব্যতীত কাউকে রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর আহলে বাইত (পরিবারের সদস্য) হিসাবে চিনত না!১৫

ইতিহাসের সাক্ষ্য দ্বারা প্রমাণিত এ ঘটনা থেকে প্রতীয়মান হয় যে, বনি উমাইয়্যা কীভাবে জনসাধারণের অজ্ঞতা ও মূর্খতা কাজে লাগিয়ে নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করেছে। তাদের অজ্ঞতা দিয়েই তাদের শোষণ করেছে এবং মিথ্যা, অপবাদ, আর বনি উমাইয়্যার নামে জাল হাদীস বানিয়ে আপামর জনসাধারণকে বোকা বানিয়েছে, তাদের আবেগ-অনুভূতিকে আহলে বাইতের বিরুদ্ধে ও হযরত মুহাম্মাদ (সা.)-এর দীন রক্ষায় যাঁরা সত্যিকার আত্মত্যাগ করেছেন তাঁদের বিরুদ্ধে বিষিয়ে তুলেছে। নিঃসন্দেহে সেদিন যদি উমাইয়্যা যুগের আলেম ও খতীবরা জনগণকে আলী (আ.) এর বিরুদ্ধে অভিসম্পাত বর্ষণ করার বুলি না শিখিয়ে ইসলামের সঠিক হুকুম-আহকাম ও দীনের দর্শন শিক্ষা দিত, তাহলে মানুষ এভাবে ইমাম হাসান ও ইমাম হুসাইনকে বাদ দিয়ে বনি উমাইয়্যাকে রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর আহলে বাইত বলে চিনত না, কিম্বা আলীর অনুসারীদের ‘কাফের’ বা ‘জিন্দীক’ বলে আত্মতৃপ্তি লাভ করত না।

কারবালার হৃদয়বিদারক ঘটনার পর নবি-পরিবারের সদস্যদের বন্দী হয়ে শামে নীত হবার পর যখন এক বৃদ্ধ অবগত হয় যে, বন্দী হয়ে আসা লোকগুলো রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর সন্তান, তখন বিস্ময়ে হতবাক হয়ে যায়। কারণ, তার ধারণাও ছিল না যে, মহানবী (সা.)-এর কোন সন্তান বেঁচে রয়েছেন। হয়ত এ কারণেই ইমাম যায়নুল আবেদীন (আ.) ইয়াযীদের দরবারে ভাষণ দানকালে সর্বপ্রথমে নিজের বংশ-পরিচয় তুলে ধরেছিলেন।

ইয়াযীদের পরিচয়


 

ইয়াযীদ জন্ম নেয় কলুষপূর্ণ এক পরিবেশে। তার মা ‘মেইসুন’১৬ ছিল ইয়াযদাল কালবির কন্যা। জন্মের পরই ইয়াযীদকে কাল্‌ব গোত্রের জনৈক খ্রিস্টান নারীর কাছে সোপর্দ করা হয়। তার লালন-পালনকারীরা ইসলাম সম্পর্কে কিছুই জানত না এবং তারা অশ্লীলতা ও নোংরামিতে অভ্যস্ত ছিল। অর্থাৎ নষ্টামি ও ধর্মবিবর্জিত এক পরিবারে সে লালিত-পালিত হয়।

তারা ইয়াযীদকে খ্রিস্টান রসম-রেওয়াজ অনুযায়ী লালন-পালন করে এবং মরু রীতি-নীতিতে অভ্যস্ত করে তোলে। ইয়াযীদের কুকুর নিয়ে খেলা, জুয়া, মদ্যপান, সহিংসতা, স্বার্থপরতা, স্বেচ্ছাচারিতা, বেপরোয়া ভাব, হত্যা, রক্তপাত, নারী-আসক্তি ইত্যাদি মানব চরিত্রের জন্য কলঙ্কজনক আরও অনেক কু-অভ্যাসের কথা সেদিন কারও অজানা ছিল না। ইয়াযীদের মুখ থেকে মদের গন্ধ নাকে আসা অবস্থায় একদা ইমাম হুসাইনের সম্মুখে এ কবিতা আবৃত্তি থেকে তার অবস্থা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায় :

الا يا صاح للعجب دعوتك ذا و لم تجب

الى الفتيات و الشهوات و الصاهباء و الطرب!

অর্থ : বন্ধু হে! আশ্চর্য হই যে, আমি তোমাকে ভোগ-বিলাস, মেলামেশা, আর উদগ্র স্তনের কন্যাদের সাথে ফূর্তি করতে এবং নাফ্‌সের কামনা-বাসনা পূরণ ও নেশাকর মদ্যপান এবং নাচ-গানের প্রতি আমন্ত্রণ জানাচ্ছি, অথচ তুমি তা গ্রহণ করছ না?১৭

ইমাম হুসাইন (আ.) মুহূর্তেই সেখান থেকে উঠে চলে যান এবং বলেন : ‘হে মু‘আবিয়ার পুত্র! এ সব কাজ তোমারই সাজে।’

মূলত মু‘আবিয়ার পুত্র ইয়াযীদের এভাবে লালন-পালন ছিল সাহাবায়ে কেরাম ও রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর আনসারগণের ছেলেমেয়েদের লালন-পালন পদ্ধতির সম্পূর্ণ বিপরীত। অথচ এ অধঃপতন সত্ত্বেও মু‘আবিয়া তাঁর ক্ষমতা ও প্রভাব খাটিয়ে শামের জনগণের কাছ থেকে ইয়াযীদের জন্য বাইয়াত আদায় করেন।১৮

ইয়াযীদ তার মনোভাব প্রকাশে কোন রাখঢাক রাখত না। সে প্রকাশ্যে এভাবে কবিতা আওড়াত :

لَيتَ اَشياخي بِبَدر شُهدوا        وَقعه الخَزرج مِن دمع الاسل

لَعبـت هاشم بالملك فلا        خبر جـاء ولا وحي نزل

অর্থ : হায়! যদি আমার পিতৃপুরুষরা বদরের ভূমি থেকে উঠে আসত এবং এ খাযরাজের (কুফার) ঘটনা দেখত! বনি হাশিম (মুহাম্মাদ ও তাঁর বংশধররা) তো রাজত্ব নিয়েই খেলেছে; আসলে না কোন খবর এসেছে, আর না কোন ওহী নাযিল হয়েছে!১৯

যা হোক অদ্যাবধি কোন নীতিবান ঐতিহাসিকের সন্ধান পাওয়া যায় না, যিনি ইয়াযীদের কোন গুণের কথা লিখে থাকবেন।

ইয়াযীদকে খলিফা নির্বাচনের পদক্ষেপ


 

আমীর মু‘আবিয়া ৫৯ হিজরিতে প্রথমে ঘরোয়া পরিবেশে ইয়াযীদের পক্ষে সমর্থন আদায় ও তা জাতীয়ভাবে উত্থাপন করার চেষ্টা চালান। এমনই এক ঘরোয়া পরিবেশে প্রথম যখন আমীর মু‘আবিয়া ইয়াযীদের খেলাফতের কথা উত্থাপন করেন, তখন তার উচ্ছিষ্ট ভোগীদের মধ্য থেকে একে একে যাহ্‌হাক ইবনে কায়েস ফেহী, আবদুর রহমান ইবনে ওসমান, আবদুল্লাহ্ ইবনে মুসআদাহ্, ছওর ইবনে মুআন এবং আবদুল্লাহ্ ইবনে এসাম আশআরী মুখস্ত করা কথা ইয়াযীদের খেলাফতের সমর্থনে বলতে লাগল। তাদের বক্তব্যের সারমর্ম ছিল : যেহেতু খেলাফতের পদে ইয়াযীদের চেয়ে যোগ্যতর আর কেউ নেই, কাজেই হে আমীর (মু‘আবিয়া)! ইয়াযীদকেই যুবরাজ ঘোষণা করুন। এটাই ভেদাভেদ ও মতপার্থক্যের থেকে উত্তম কাজ।২০ কিন্তু এ বৈঠকে আহনাফ ইবনে কায়েসও ছিলেন। তিনি আরবের একজন বিজ্ঞ ও উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি ছিলেন। তিনি তখন বলে উঠলেন : ‘হে আমীর! জনগণ ভাল ও মন্দ সম্পর্কে পাশ কাটিয়ে যাচ্ছে। আমাদের বয়স তো পার হয়ে গেছে। আপনি নিজে ভালভাবে জানেন যে, আপনার পরে খেলাফত কার প্রাপ্য। যারা ইয়াযীদকে যুবরাজ করার ব্যাপারে আপনাকে উস্কে দিচ্ছে, তাতে আপনি গর্বিত হবেন না। আপনি অবগত যে, যতদিন হুসাইন জীবিত থাকবেন, ততদিন এটা মেনে নেবে না।’

আহনাফ পুনর্বার বলেন : ‘হে মু‘আবিয়া! আপনি নিজেই জানেন যে, আপনি যুদ্ধের মাধ্যমে ইরাক জয় করেননি। ইমাম হাসানের সাথে আপনার যে সন্ধি হয়েছিল তার একটি শর্ত ছিল যে, আপনার পরে কাউকেই মুসলমানদের খলিফা বানাবার অধিকার আপনার থাকবে না। খেলাফত তাঁর হাতেই তুলে দেবেন। আল্লাহ্‌র কসম! যদি এক চুল পরিমাণও বিচ্যুত হন তাহলে তাঁর আস্তিনের নিচে হাতসমূহ দেখতে পাবেন যেগুলো তাঁর বাইয়াতে আবদ্ধ এবং তাঁকে যে কোন প্রকার সাহায্য করতে প্রস্তুত। সেদিন যে তলোয়ারসমূহ সিফ্‌ফিনের ময়দানে আলীর জন্য আপনার বিরুদ্ধে শান দেওয়া হয়েছিল, সেগুলো এখনও তাদের কাঁধে ঝুলানো আছে এবং আপনার বিরুদ্ধে ঘৃণায় যেসব অন্তর সেদিন পূর্ণ ছিল, আজও তা তাদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে প্রবহমান রয়েছে…।’ কিন্তু দুঃখজনক হল সেদিনের বৈঠক শেষ হয় জনাব মু‘আবিয়ার অনুচর যাহ্‌হাকের এ কথার মাধ্যমে যে, মত প্রকাশের অধিকার শুধু উমাইয়্যা বংশের লোকদেরই রয়েছে। ইরাকবাসীর কোন কথা বলার অনুমতি নেই। তাদের নিঃশ্বাসকে তাদের বুকের ভেতরেই দাফন করতে হবে…।২১ মু‘আবিয়া আহনাফের কথা উপেক্ষা করে ইয়াযীদকে যুবরাজ হিসাবে ঘোষণা করলেন। এভাবেই তিনি খেলাফতকে রাজতন্ত্রে পরিণত করেন এবং একে তাঁর বংশের জন্য উত্তরাধিকারের বিষয়ে পরিণত করেন। শিয়া-সুন্নী উভয় সূত্র মতে, মু‘আবিয়া ক্ষমতাকে তাঁর বংশগত করার লক্ষ্যে যারা খেলাফতের দাবিদার হতে পারে তাদের ওপর কঠোরতা আরোপ শুরু করেন।২২

ইমাম হাসান (আ.)-এর শাহাদাতের কিছুদিন অতিবাহিত না হতেই আমীর মু‘আবিয়া শামের জনগণের নিকট থেকে ইয়াযীদের খেলাফতের নামে বাইয়াত গ্রহণ করেন। এরপর মদীনায় মারওয়ান ইবনে হাকামের কাছে চিঠি লিখে নির্দেশ দেন মদীনার নেতৃবৃন্দের কাছ থেকেও বাইয়াত আদায় করতে।২৩ মারওয়ান যখন দেখল হেজাজের লোকেরা ইয়াযীদের বাইয়াত করছে না তখন সে তা মু‘আবিয়াকে লিখে পাঠায়। আমীর মু‘আবিয়া তৎক্ষণাৎ মারওয়ানের স্থলে সা’দ ইবনে আসকে নিয়োগ করে। এবার সে মু‘আবিয়ার নির্দেশ পালনে তৎপর হয়। কিন্তু জনগণ মুখ ফিরিয়ে নিল এবং বনি উমাইয়্যা ছাড়া আর কেউ বাইয়াত করল না।২৪

তখন মু‘আবিয়া ইয়াযীদের আনুগত্য মেনে নেয়ার জন্য আবদুল্লাহ্ ইবনে আব্বাস, আবদুল্লাহ্ ইবনে যুবাইর, আবদুল্লাহ্ ইবনে জাফর এবং ইমাম হুসাইন (আ.)-এর নিকট চিঠি পাঠান। কিন্তু তাঁরা সকলেই বাইয়াত করতে অস্বীকৃতি জানান। তখন মু‘আবিয়া হজ্ব ও ওমরার অজুহাতে উমাইয়্যা গোত্রের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের সাথে নিয়ে সশস্ত্র লোকজনের প্রহরায় হেজাজে আসেন। সেখানে আনসার ও মুহাজিরদের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের ও তাঁদের সন্তানদের সাথে এক বৈঠকে মিলিত হন এবং নিজের অযোগ্য পুত্রকে যুবরাজ বানাবার ঘোষণা দেন।২৫

ইমাম হুসাইন (আ.)-এর প্রতিবাদ


 

ইমাম হুসাইন (আ.) বেশ কিছু কাল ধরে উমাইয়্যাদের চিন্তাধারার বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে উঠেছিলেন। প্রায়ই তিনি বিপদ সংকেত ঘোষণা করতেন এবং বলতেন : ‘নিজের নীরবতার জন্য আল্লাহ্‌র কাছে ক্ষমা চাই।’২৬ কেননা, ইমাম জানতেন যে, কুরআন ও ইসলামের টিকে থাকা নির্ভর করছে তাঁর আত্মত্যাগ ও শাহাদাতের ওপর। কারণ, বনি উমাইয়্যা ইসলাম বলতে রাজত্ব ও ক্ষমতা ছাড়া আর কিছুই বুঝেনি। তাদের যাবতীয় শত্রু”তা ও মিত্রতা ছিল দুনিয়াকে পাওয়ার লক্ষ্যে এবং অনেক বক্র চিন্তার লোকের মতই তারাও মনে করত যে, শরীয়ত প্রবর্তনকারীরা ধর্মকে নেতৃত্ব ও রাজত্ব করার মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করেছেন।

ইয়াযীদ যেমন অন্তরে ধর্মের প্রতি বিশ্বাস রাখত না, তেমনি বাহ্যিকভাবেও তা মেনে চলত না। কিন্তু ইমাম হুসাইন (আ.) ছিলেন ঈমান ও হাকীকতের বাস্তব প্রতীক এবং দীনের প্রতি গভীর বিশ্বাস তাঁর সমস্ত শিরা-উপশিরায় বেগবান রক্তের মত ঢেউ খেলে যেত। তিনি ভাল করেই মু‘আবিয়ার দুরভিসন্ধি বুঝলেন এবং এক অগ্নিঝরা ভাষণের মাধ্যমে তাঁর নীল নকশাকে প্রকাশ করে দিলেন।২৭ তিনি তাঁর ভাষণে বলেন :

‘হে মু‘আবিয়া! … সত্যিই কি তুমি জনগণকে ইয়াযীদের বিষয় নিয়ে বিভ্রান্তির মধ্যে নিক্ষেপ করতে চাও? যখন তার চরিত্রই তার উত্তম পরিচয়। তার চিন্তাচেতনা ও অভিমত তার কাজেই প্রকাশিত। তুমি ইয়াযীদ সম্পর্কে এবং আলে মুহাম্মাদ (সা.)-এর ওপর তার কর্তৃত্বের ব্যাপারে যা ঘোষণা করেছ, তা আমি শুনেছি! তাহলে আস, এ ইয়াযীদকে কুকুর, বানর, কবুতর, নারী-আসক্তি ও ফূর্তিবাজি সম্পর্কে পরীক্ষা করে দেখ…।

হে মু‘আবিয়া! শুনেছি যে, তুমি আমাদের প্রতিও ইশারা করেছ। আল্লাহ্‌র কসম করে বলছি, মহানবী (সা.) তাঁর বিশেষ বৈশিষ্ট্যগুলো আমাদের জন্যই উত্তরাধিকার হিসাবে রেখে গেছেন।

হে মু‘আবিয়া! কীভাবে গুরুত্বপূর্ণ কর্মকাণ্ড-যেখানে যোগ্যতম লোকদের থাকা দরকার, সেখানে তাদেরকে বর্জন করছ এবং একজন পাপাচারী ও সম্ভোগে বুঁদ হয়ে থাকা লোককে অগ্রগণ্য করছ?’

মু‘আবিয়ার মৃত্যুর পর ইয়াযীদ খলিফা হলে ইমাম হুসাইন (আ.) এক শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতির মধ্যে তার হাতে বাইয়াত করতে অস্বীকার করার মাধ্যমে নিজেকে একজন আত্মত্যাগী বীরের বেশে মৃত্যুর ঝুঁকিতে ফেলেন। কারণ, তিনি ভাল করেই জানতেন যে, ইসলামের যে চারাগাছ আজ শুকিয়ে মুষড়ে পড়েছে, তা কেবল তাঁরই পবিত্র রক্তের অমিয় সিঞ্চনে পুনরায় সতেজ হয়ে ওঠার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু এ আত্মোৎসর্গ বিশ্বে হক ও বাতিলের মধ্যকার এক অবিশ্রান্ত সংগ্রাম হিসাবেই প্রতিফলিত হতে হবে। যাতে মুসলিম রাজ্যে শাসনকর্তাদের জুলুম-অত্যাচার ও জনগণকে গোলামে পরিণত করার চক্রান্তের মূলোৎপাটন করা সম্ভব হয়। ফলে, আরও একবার মুসলমান জনপদে পরহেযগার, খোদাভীরু, লড়াকু সৈনিকদের শক্তিমত্তা- যা উমাইয়্যা অত্যাচারের ঘূর্ণিপাকে আটকা পড়েছিল- তা উজ্জীবিত হয়ে উঠবে।

ঘটনা বাস্তবে এমনই ঘটেছিল। ইমাম হুসাইন (আ.) নিজের চোখে দেখে যেতে পারেননি, কিন্তু অচিরেই তাঁর এ আত্মদান এমনভাবে ফলবান হয়ে বিদ্যুৎগতিতে নগরে প্রান্তরে ছড়িয়ে পড়েছিল যে, খোদ ইয়াযীদের দারুল খোলাফাও তা থেকে নিস্তার পায়নি। এ কারণে তারই পুত্র উমাইয়্যা গোত্রের শত্রু”তাপূর্ণ কর্মকাণ্ডের কারণে স্বীয় পদ থেকে ইস্তফা দেয় এবং বলে : ‘আমি কখনই খেলাফতকে তার আহল (হকদার) থেকে বাধা দেব না।’২৮

প্রস্তুত ইমাম হুসাইন (আ.)


 

ইসলাম জিহাদ তথা বিদ্রোহের অনুমতি দেয় কয়েকটি শর্ত ও প্রেক্ষাপটের ভিত্তিতে। এসব শর্ত হল :

১. সকল অভিজ্ঞ ব্যক্তি, বিশেষ করে বিদ্রোহকারী ব্যক্তির কাছে নিশ্চিত হতে হবে যে, আল্লাহ্‌র হুকুম প্রকাশ্যে লঙ্ঘন করা হচ্ছে এবং জুলুম, অন্যায় ও অত্যাচার সর্বত্র ছেয়ে গেছে।

২. সাধারণ জনগণের সমর্থন বিদ্রোহ ও জিহাদের নেতৃত্বদানকারীদের অনুকূলে থাকবে, যদিও তাদের হাত-পা বাঁধা থাকে এবং তাদের মত প্রকাশের অধিকার বুকের ভেতরেই চাপা পড়ে যায়।

৩. ইবনে খালদুনের মতানুসারে যে ব্যক্তি বিদ্রোহ ও জিহাদের নেতৃত্ব প্রদান করবে তাকে সে যোগ্যতার অধিকারী হতে হবে।

৪. জুলুম ও খোদাদ্রোহিতা প্রতিরোধের জন্য যুদ্ধ ও আত্মদান ছাড়া বিকল্প পথ না থাকা।

আমরা মনে করি যে, ইমাম হুসাইন (আ.) এর উত্তর দিয়েছেন স্বয়ং তাঁর নানা রাসূলের ভাষ্য থেকেই। পরিস্থিতির মূল্যায়ন এবং কর্তব্য নির্ধারণের ব্যাপারে তিনি রাসূলুল্লাহ্ (সা.) থেকে এ বাণীটি উল্লেখ করেছিলেন :

يا ايها الناس! ان رسول الله (ص) قال: من رأى سلطانا جائرا مستحلا لحرام الله ناكثا بعهد الله مخالفا لسنة رسول الله يعمل في عباده بالاثم و العدوان فلم يغير عليه بفعل و لا قولك ان حقا على الله ان يدخله مدخله. الا و ان هؤلاء قد لزموا طاعة الشيطان و تركوا طاعة الرحمن و ظهروا الفساد و عطلوا الحدود و استأثروا بالفى و احلوا الله حرام الله و حرموا حلاله و انا احق من غيرى.

‘হে জনগণ! নিশ্চয় রাসূলুল্লাহ্ (সা.) বলেছেন : যে ব্যক্তি কোন স্বৈরাচারী শাসককে দেখে, যে আল্লাহ্‌র হারামগুলোকে হালাল করে এবং তাঁর হালালগুলোকে হারাম করে, আল্লাহ্‌র সাথে ওয়াদাগুলো ভঙ্গ করে এবং রাসূলের সুন্নাহ্ অগ্রাহ্য করে এবং জাতি ও প্রজাদের সাথে পাপাচার ও অত্যাচারপূর্ণ আচরণ করে, অথচ তাকে নিজ কথা কিম্বা কর্ম দ্বারা পরিবর্তন করে দেয় না, তার বিরুদ্ধে আল্লাহ্‌র ন্যায্য অধিকার হল সেখানে তাকে নিক্ষেপ করবেন, যেখানে উক্ত স্বৈরাচারকে নিক্ষেপ করবেন। তোমরা কি দেখছ না যে, এরা (বনি উমাইয়্যা) শয়তানের আনুগত্যে লিপ্ত হয়েছে, আল্লাহ্‌র অনুগত্যকে বর্জন করেছে, আর ফাসাদকে প্রকাশ্য রূপ দিয়েছে এবং আল্লাহ্‌র বিধি-বিধানগুলো অকেজো করে রেখেছে। আর জনগণের বাইতুল মাল নিয়ে ফূর্তি ও বিলাসব্যসনে মগ্ন হয়েছে। এরা আল্লাহ্‌র হারামকে হালাল করেছে এবং তাঁর হালালকে হারাম করেছে। (জেনে রাখ) এদের প্রতিরোধ করার জন্য এবং রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর এ নির্দেশ বাস্তবায়নের জন্য আমি অন্যদের চেয়ে বেশি উপযুক্ত ও যোগ্য।’২৯

তবে প্রশ্ন উঠতে পারে এ বিষয়ে যে, ইমাম হুসাইন (আ.) কেন মু‘আবিয়ার আমলেই বিদ্রোহ করলেন না? আর ইয়াযীদের আমলে কেনই বা মু‘আবিয়ার আমলের মত নীরব থাকলেন না? এর উত্তর হল, ইমাম হুসাইন (আ.) দূরদর্শিতার কারণেই মু‘আবিয়ার শাসনামলে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়েননি। এর অন্যতম কারণ ছিল মু‘আবিয়ার অভূতপূর্ব চাতুর্যপূর্ণ শাসন-কৌশল। তিনি আলী ইবনে আবি তালিব (আ.)-এর বিরুদ্ধে রাজ্যময় অভিসম্পাত বর্ষণের প্রথা চালু করলেও এ কৌশলে কোন ভুল করেননি যে, ইমাম হুসাইন (আ.)-এর কাছ থেকে বাইয়াত আদায়ে কড়াকড়ি করে নিজের জন্য সমস্যা সৃষ্টি করবেন। কেননা, তাঁর আশপাশে ছিল আমর ইবনে আস ও মুগীরা ইবনে শুবার ন্যায় ধুরন্ধর কুটকৌশলীরা। যারা কাগজ ও কুরআনের মলাট উঁচু করে সিফ্‌ফিনের পরিণতি ঘুরিয়ে দিতে দ্বিধা করেনি। কিন্তু আজ ইয়াযীদের চারপাশে কজন রোমান গোলাম ছাড়া রাজনীতিক ব্যক্তিত্ব কাউকে পাওয়া যায় না। এ কারণে তার পিতা যে ভুল করেননি, আনাড়ী ও ক্ষমতার মোহে অন্ধ ইয়াযীদ খেলাফতের মসনদ হাতে পেয়ে প্রথমেই সে ভুলে পা দেয়। নবি (সা.)-এর সন্তান হযরত ইমাম হুসাইন (আ.)-কে হয় আনুগত্য করতে হবে, নয়ত তাঁকে হত্যা করা হবে- এ সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে।

ইমাম হুসাইন (আ.) ইয়াযীদের নিকৃষ্ট পরিচয় এবং নিজের পূত-পবিত্র উৎকৃষ্ট পরিচয় উপস্থাপনপূর্বক সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলেন : مثلي لا يبايع مثل يزيد ‘আমার মত ব্যক্তি ইয়াযীদের মত ব্যক্তির হাতে বাইয়াত করতে পারে না।’৩০

যে হুসাইন রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর কোলে-পিঠে এবং মা ফাতেমার পবিত্র আঁচলে বড় হয়েছেন, তাঁর পক্ষে এরূপ পরিস্থিতিতে শান্ত হয়ে বসে থাকা কি সম্ভব ছিল? যখন তিনি দেখতে পাচ্ছেন, যে ইসলামকে প্রচার করার জন্য তাঁর নানা ও পিতা শরীরের রক্ত পানি করেছেন, সে ইসলাম একদল অধঃপতিত, বিচ্যুত ও সম্পূর্ণরূপে দুনিয়াপূজারী লোকের হাতে জিম্মী হয়ে পড়বে। যদি রুখে দেওয়া না হয় তাহলে যেসব উমাইয়্যা কুকর্ম ও অনাচার সমাজে রীতি হিসাবে চালু করা হয়েছে, অচিরেই সেগুলো কুরআন ও সুন্নাহর স্থান দখল করে নেবে এবং সেগুলোই নিখাদ ধর্মাচার বলে প্রতিষ্ঠা লাভ করবে। ইমাম হুসাইন দেখতে পাচ্ছেন জুলুমবাজ ও মুনাফিক লোকেরা ইসলামের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা করছে ও অপরাধ সংঘটিত করে উমাইয়্যা দরবারে আশ্রয় নিচ্ছে। তিনি লক্ষ্য করলেন, যে কঠিন বিচ্যুতি উমাইয়্যা শাসকদের ঘাড়ে চেপে বসেছে, তা ওয়াজ-নসিহতে অপসারিত হবে না। চোখের সামনেই ইমাম দেখছেন ধর্মভীরু পুণ্যবান লোকেরা উমাইয়্যা কুকর্মের বিরোধিতা করার ফলে একে একে কবরবাসী হচ্ছেন। বাইতুল মাল জনগণের কল্যাণে ব্যয় না হয়ে দরবারের লোকদের কামনা মেটানোর জন্য দাসী খরিদ করতে খরচ করা হচ্ছে। ওদিকে অনাহার-অর্ধাহারে হাজার হাজার মুসলমান মৃত্যুমুখে পতিত হচ্ছে।

ইমাম দেখছেন যে, গোত্রপতিরা অনেকেই ভোগ-বিলাসে ডুবে আছে। আর যাদের মধ্যে এখনও এক চিলতে ঈমান অবশিষ্ট রয়েছে, তারা ইমাম হুসাইন (আ.)-এর মুখপানে চেয়ে রয়েছে। তাদের বক্তব্য, যদি হুসাইন (আ.) বিদ্রোহ না করেন, তাহলে আমরা কেন ধ্বংস হব? আর যদি আমর বিল মারুফ ওয়া নাহি আনিল মুনকারের কাজ ওয়াজিব হয় তাহলে প্রথমে হুসাইন (আ.)-কেই তা পুনরুজ্জীবিত করতে হবে।

উমাইয়্যা গোত্রের অগণিত পাপাচার এ সত্যকে সবার সামনে স্পষ্ট করে দিয়েছিল যে, তারা কেবল মুহাম্মাদ (সা.)-এরই শত্রু” নয়; বরং জাহেলী যুগের বিদ্বেষ মোতাবেক এমনকি নবিবংশের একটা শিশুকেও জীবিত রাখবে না।

কর্তব্যের শহীদ ইমাম হুসাইন (আ.)


 

ইসলামের ভিত গড়ে উঠেছে কয়েকটি মূল জিনিসের ওপর, যার অন্যতম হল জিহাদ ও আত্মত্যাগ। কিন্তু ইমাম হুসাইন (আ.) দেখলেন, একমাত্র নবির পরিবার ছাড়া আরবের সকল মুসলমানের মধ্য থেকে দীনের দরদ উবে গেছে। এদিকে ইয়াযীদও কুকর্মের কিছুই বাকি রাখেনি। আর ইমাম হুসাইন লক্ষ্য করলেন যে, নীরব থাকার কোনই সুযোগ নেই। এ কথার প্রমাণ মেলে স্বয়ং ইমাম (আ.)-এর দোয়ায়ে আরাফা’র উক্তি থেকে। দোয়ার ভাষায় তিনি বলেন : فقتلت مقهورا অর্থাৎ পরিস্থিতি এমন দাঁড়াল যে, হুসাইন ইসলাম রক্ষায় কুরবানী হলেন অনন্যোপায় হয়ে। ইমাম হুসাইন বাতিলের নিকষ অন্ধকারের বিপরীতে সত্যের আলোকোদ্ভাসিত চেহারা নিয়ে দাঁড়ালেন স্বীয় কর্তব্য পালন করতে। এ তো সর্বস্ব কুফ্‌রের বিরুদ্ধে সর্বস্ব ঈমানের আবির্ভাব; আর বিস্মৃতির অতলে ডুবে যাওয়া মুহাম্মাদী শিক্ষার সগৌরব প্রত্যাবর্তন। নানার দীনকে হায়েনার কবল থেকে রক্ষায় তিনি রুখে দাঁড়ালেন, শেষ রক্ত বিন্দু দিয়ে নিজের কথা রাখলেন এবং এ পথে তাঁর বুকের রক্ত কীভাবে বয়ে গেছে তা স্বচক্ষে অবলোকন করেছেন। দোয়ার ভাষায় তাই মাসূম ইমামগণ নিঃসঙ্কোচে ঘোষণা করেছেন :

بذل مهجه ليستنقذ عبادك من الضلالة

অর্থাৎ (হে আল্লাহ্!) তিনি (হুসাইন) তো তোমার রাহে স্বীয় বুকের রক্ত অকাতরে ঢেলে দিয়েছেন, যাতে তোমার বান্দারা গোমরাহী থেকে রক্ষা পায়।

ইমাম হুসাইন (আ.) বিদ্যমান ঘটনাবলির প্রেক্ষিতে শেষ পর্যন্ত এ সিদ্ধান্তে পৌঁছলেন যে, আত্মোৎসর্গই তাঁর কর্তব্য। তাঁর এ কর্তব্য পালনের কথা আমরা আশুরার রাতে ইমাম ও তাঁর সঙ্গীবৃন্দের কথোপকথন থেকে সন্দেহাতীতভাবে বুঝতে পারি। মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও তাঁরা সারারাত ধরে নিশ্চিন্তে ও পরম প্রশস্তি সহকারে কুরআন তেলাওয়াত আর নামায ও মোনাজাতে অতিবাহিত করেন। শাহাদাতের সুমধুর ঘ্রাণ তাঁরা স্পষ্টভাবে অনুভব করছিলেন। যখন ইমাম হুসাইন (আ.) তাঁদেরকে বললেন : তোমরা চলে যেতে পার। তাঁরা বলে উঠলেন : কোথায় যাব? আল্লাহ্‌র কসম, যদি হাজার বার নিহত হই, পুনরায় আমাদের জীবিত করে হত্যা করা হয়, তবুও আপনার সাথে জীবন উৎসর্গ করাকে বেঁচে থাকার ওপরে স্থান দেব।৩১

এ সময় মুসলমানদের অন্য সকল নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি ইমাম হুসাইন (আ.)-এর শাহাদাতের উদ্দেশ্য সম্পর্কে বেখবর ছিল। আবদুল্লাহ্ ইবনে যুবাইর মনে করতেন, ইরাক হল তাঁর জায়গা। এ কারণে তিনি প্রহর গুণতে থাকেন হুসাইন হেজাজ থেকে কখন চলে যান, যাতে তাঁর পথ পরিষ্কার হয়ে যায়। আর ইবনে আব্বাস, ইবনে জাফর, ইবনে ওমর এ ভাবনায় ছিলেন যে, তিনি কেবল হেজাজের জন্যই। তাই তাঁরা বলছিলেন, হুসাইনের হেজাজে থাকা উচিত যাতে তাঁর প্রস্থানের মাধ্যমে ইবনে যুবাইয়েরের চোখ উজ্জ্বল না হয়।

এদিকে ইবনে যিয়াদ মনে করছিল, ইমাম বুঝি কুফায় গোলযোগ সৃষ্টিকারীদের সাথে জড়িত। তাই তার ধারণা ছিল তাঁকে হত্যা করার মাধ্যমে কুফার সত্যপন্থীদের অন্তরে ভালবাসার প্রদীপ নিভিয়ে দিতে পারবে।

আফসোস! কীসব সংকীর্ণ ভাবনা হুসাইনকে নিয়ে! আশ্চর্যের বিষয় হল এরা কেউই জানে না যে, হুসাইন এমন এক বিশাল ব্যক্তিত্বের নাম, কোন নির্দিষ্ট স্থান, কাল বা পাত্রের সাধ্য নেই তাঁকে ধারণ করার।

তবে কেন ক্রন্দন

ইমাম হুসাইন (আ.)-এর সপরিবারে শাহাদাত বরণের জন্য শোক ও মাতম করার মূল প্রোথিত রয়েছে ইতিহাসের গভীরে। মহান আম্বিয়ায়ে কেরাম, এমনকি আসমানের ফেরেশতাকুলও নিজ নিজ পন্থায় এ শহীদ ইমামের জন্যে আযাদারী করেছেন। রেওয়ায়েত অনুযায়ী আশুরার ঘটনা সংঘটিত হওয়ার পরে চারদিকে আঁধার নেমে আসে এবং কারবালার আকাশ কালো ধুলোয় ভরে যায়। আর সেখানকার নুড়ি পাথরগুলো, এমনকি জলের মাছগুলো চল্লিশ দিন ধরে ইমামের শোকে ক্রন্দন করতে থাকে।

انَّ السماء بكي عَلي مَصاب الْحُسين اَربَعين صَباحاً

‘ইমাম হুসাইন (আ.)-এর মুসিবতে আকাশ চল্লিশ দিন ধরে ক্রন্দন করে।’৩২

ইমাম হুসাইন (আ.) এর জন্য আযাদারী পালন একটি প্রাচীন রীতি এবং আল্লাহ্ ও রাসূল (সা.)-এর পক্ষ থেকে প্রবর্তিত বিষয়। যেমন রাসূলুল্লাহ্ (সা.) ইমাম হুসাইনের ঠোঁটে এবং গলায় চুম্বন দিতেন এবং কাঁদতে কাঁদতে বলতেন :

السيّوف انّي اقبل مواضع

‘আমি তলোয়ারের জায়গাগুলোতে চুম্বন করছি।’৩৩

 

হযরত ফাতিমা যাহ্‌রাকে হুসাইনের জন্য আযাদারী পালনের গুরুত্বের ব্যাপারে তিনি বলতেন :
يا فاطمه كُلّ عَيْن باكيَه يَوم الْقيامَه اْلاعين بكت عن مَصاب ا لْحسين فانها ضاحكه مستبشره بنعيم الجنه

‘হে ফাতিমা! কিয়ামতের দিন প্রত্যেক চক্ষুই কাঁদতে থাকবে, কেবল সে চোখ ব্যতীত, যে হুসাইনের মুসিবতে ক্রন্দন করেছে। জান্নাতের নেয়ামতে পূর্ণ হয়ে সে আনন্দিত ও হাসিমুখে থাকবে।৩৪

হযরত আলী ইবনে আবি তালিবও আযাদারী ও ক্রন্দন করেছেন। এর সবচেয়ে প্রসিদ্ধ দৃষ্টান্ত হল সিফ্‌ফিনে যাওয়ার পথে সঙ্গী-সাথীদের নিয়ে আমীরুল মুমিনীন আলী (আ.) যখন নাইনাওয়া (কারবালা) ভূমিতে পৌঁছেন, তখন ক্ষণিক যাত্রা বিরতি করে বিশ্রাম গ্রহণ করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। তিনিও অবতরণ করলেন। এরপর দু’হাত কারবালার উত্তপ্ত বালির ওপর রাখলেন এবং ক্রন্দন করলেন। সঙ্গীরা যখন ইমামের কাছে এর কারণ জানতে চাইলেন তখন তিনি বললেন :

ههنا مناخ ركابهم ومسفك دمائهم ومحط رحالهم

‘এ স্থানই তাদের বহনকারী জন্তুগুলোর থামার জায়গা এবং এখানেই তাদের রক্ত মাটিতে মিশবার জায়গা এবং তাদের মালামাল নামানোর জায়গা।’৩৫

এছাড়া ফাতিমা যাহ্‌রা (আ.) রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর নিকট থেকে শিক্ষা নিয়ে ইমাম হুসাইন (আ.)-এর দোলনা দোলানোর সময় থেকে নিজের শাহাদাতের মুহূর্ত পর্যন্ত সবসময় হুসাইনের মজলুম হওয়া ও নির্মমভাবে শহীদ হবার কথা স্মরণ করে ক্রন্দন করতেন। আর কন্যা যায়নাবকে উপদেশ দিতেন যেন এ দুঃসময়ে তাঁর ভাইয়ের সঙ্গী হন।

স্বয়ং ইমাম হুসাইনও একাধিকবার কারবালার পথ অতিক্রম করার সময় মহা বিপদ সংঘটিত হওয়া মর্মে তাঁর প্রিয় নানা ও পিতার ভবিষ্যদ্বাণীর আলামতসমূহ প্রত্যক্ষ করে ক্রন্দন করেন। যেমন, যখন উবায়দুল্লাহ্‌র চিঠি দেখেন এবং হযরত মুসলিম ও হানির শাহাদাতের খবর পান এবং সেনাপতি হুরের দ্বারা যখন তাঁর পথ আটকে ধরা হয়। বর্ণিত হয়েছে যে, এসব ঘটনায় ইমাম হুসাইন (আ.) আয়াতে ইস্তিরজা (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহহি রাজেউন) পাঠ করেন। আর আশুরার রাতে সঙ্গী-সাথী ও পরিবারবর্গের মাঝে আযাদারী অনুষ্ঠান করেন, সন্তানদের থেকে বিদায় গ্রহণ করেন এবং এক বর্ণনা অনুযায়ী তিনি বনি হাশিমের একেক জন যুবকের মুখের দিকে তাকাচ্ছিলেন এবং ক্রন্দন করছিলেন। فَنَظَر اليهم ثُمَّ بكي ساعَهً ‘তিনি তাঁদের দিকে তাকালেন। তারপর কিছুক্ষণ ধরে ক্রন্দন করলেন।’৩৬ তিনি পবিরারবর্গকেও বলেন তাঁর জন্য ক্রন্দন করতে। বিশেষ করে বোন যায়নাব ও প্রাণপ্রিয় পুত্র যায়নুল আবেদীন (আ.)-কে নির্দেশ দেন তাঁর শাহাদাতের পর যেন বন্দী অবস্থায় চলার পথে যেখানেই যাত্রাবিরতি করা হবে, সেখানে তাঁর মজলুম হওয়ার কথা বর্ণনা করা হয় এবং জনগণের বিশেষ করে শামের জনগণের কানে তা পৌঁছানো হয়। এছাড়াও তিনি তাঁর অনুসারীদের আশুরার শোক পালন ও আযাদারী অনুষ্ঠান করার মাধ্যমে তা ভবিষ্যতের মানুষের কাছে পৌঁছে দেবার নির্দেশ দেন। শোকাশ্রু বিসর্জন করা এবং আশুরার দিনে তাঁর মুসিবতের কথা স্মরণ করে আযাদারী পালন করার মধ্যে যে বার্তা নিহিত রয়েছে, সেটা বুঝাতে তিনি বলেছেন :

انا قتيل العبره قتلت مكروباً فلا يذكرني مؤمن ا لّا بكي

‘আমি অশ্রুর শহীদ, আমি নিহত হয়েছি চরম কষ্ট স্বীকার করে, তাই কোন মুমিন আমাকে স্মরণ করলে ক্রন্দন না করে পারে না।’৩৭

সুতরাং, ইমাম হুসাইন (আ.)-এর জন্য ক্রন্দন ও আযাদারীর শিকড় প্রোথিত রয়েছে আমাদের দীন ও আকীদার অভ্যন্তরে এবং বিভিন্ন রেওয়ায়েত মোতাবেক এর অশেষ প্রভাব ও বরকত রয়েছে। তার মধ্যে উৎকৃষ্টতম প্রভাব হল তা আমাদের অন্তরসমূহের মরিচা বিদূরিত করে, আমাদের জীবনকে উন্নত করে এবং সত্যের পথে অকুতোভয় ও বাতিলের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার দুর্নিবার মানসিকতা দান করে। ফলে আল্লাহ্‌র রহমত সকলের ওপরে অবারিত করে দেয়। শোকের এ শক্তি কত জালিমকে উৎখাত করেছে, কত মজলুমের অধিকার ফিরিয়ে দিয়েছে, ইসলামকে কতবার যে ধ্বংসের কবল থেকে উদ্ধার করেছে তা কেবল ইতিহাসই বলতে পারে।

তাই তো ইমাম যায়নুল আবেদীন (আ.) তাঁর পিতার শাহাদাতের পর ইবনে যিয়াদের নিকট যেসব দাবি তুলে ধরেন তার অন্যতম ছিল, একজন বিশ্বাসভাজন লোককে কাফেলার সাথে পাঠাও যাতে পথিমধ্যে যেসব জায়গায় যাত্রা বিরতি করা হবে, সেখানে আযাদারী অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করে দেয়। আল্লাহ্‌র ইচ্ছায় সেদিন দুশমন এ শর্তটি মেনেও নেয় এবং নোমান ইবনে বাশীরকে কাফেলার সাথে পাঠায়। কাফেলা যেখানেই যাত্রাবিরতি করছিল, নোমান সেখানেই তাঁদের জন্য প্রয়োজনীয় পরিবশে তৈরি করে দিচ্ছিল যাতে ইমামপরিবার আযাদারীর অনুষ্ঠান করতে পারে। সেখানে ইমাম হুসাইনসহ কারবালার শহীদদের কঠিন বিপদ ও দুর্দশার কথা বর্ণনার মাধ্যমে একদিকে সাধারণ মানুষের মধ্যে ইমাম পরিবার সম্পর্কে সহানুভূতি সৃষ্টি, অপরদিকে জালেম ইয়াযীদ ও তার দোসরদের মুখোশ খুলে দিতে সক্ষম হন। স্বয়ং নোমান ইবনে বাশীর, যে নিজে ইমাম পরিবারকে মনেপ্রাণে ভালবাসত, দীর্ঘ এ যাত্রাপথে ইমাম যায়নুল আবেদীন ও হযরত যায়নাবের বয়ান শুনে এমনভাবে প্রভাবিত হয় যে, উচ্চৈঃস্বরে ক্রন্দন করতে থাকে।

অতঃপর কাফেলা যখন মদীনায় পৌঁছে, তখন নোমান সবার আগে ছুটে গিয়ে মদীনায় প্রবেশ করে এবং প্রচণ্ডভাবে ক্রন্দন করতে করতে একটি কাসিদার মাধ্যমে আহলে বাইতের মুসিবতের কথা মদীনার জনগণের কাছে বর্ণনা করে। কাসিদাটির অংশবিশেষ নিম্নরূপ :

يا اهل يثرب لا مقام لكم      قتل الحسين فارمعي مدرار

الجسم منه بكربلا مضرّج     و الرأس منه علي الداريداراً

 

‘হে মদীনাবাসী! তোমাদের জন্য আর কোন থাকার জায়গা রইল না। কারণ, হুসাইন কতল হয়েছেন। গায়ের জামাগুলো ছিঁড়ে ফেল, কেননা, তাঁর পবিত্র দেহ কারবালার ময়দানে টুকরো টুকরো হয়েছে। আর তাঁর কাটা মস্তক এখন বর্শার মাথায় নিয়ে ঘুরে বেড়ানো হচ্ছে।’

মদীনার জনগণ এ খবর শুনে বেহাল ও বেকারার হয়ে পড়ে এবং নিজ নিজ ঘর ছেড়ে ছুটে বের হয়ে আসে। সবাই একাকার হয়ে উচ্চৈঃস্বরে ক্রন্দন করতে থাকে এবং মদীনার আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে এমন এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয় যা মদীনা কোনদিন দেখেনি। সকলে পাগলপারা হয়ে নবি পরিবারের কাফেলার দিকে ছুটে যায়। এ খবর আস্তে আস্তে ছড়িয়ে পড়লো সর্বত্র। মুমিনের ঘরে ঘরে আযাদারী, শোক, মাতম এবং কান্নার রোল পড়ে গেল। একটি খিমা নির্মিত হল ইমাম যায়নুল আবেদীন (আ.)-এর জন্য। শোকার্ত মানুষ তাঁকে ঘিরে রেখেছিল, সান্ত্বনা প্রদান করছিল এবং তাঁর হাতে-পায়ে ভক্তিভরে চুম্বন করছিল। পুরুষরা উচ্চৈঃস্বরে ক্রন্দন করছিল ও ফরিয়াদ তুলছিল। আর নারীরা তাদের মুখ, বুক চাপড়াচ্ছিল। কাফেলা যখন শহরে প্রবেশ করে, তখন ইমাম হুসাইন (আ.)-এর ইয়াতিম বাচ্চাগুলোকে মদীনার নারীরা বুকে টেনে নিয়েছিল। আর পুরুষরা ইমাম যায়নুল আবেদীনকে সান্ত্বনা দিয়েছিল।

ইমাম হুসাইনের শাহাদাতের পর বিখ্যাত সাহাবী হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ্ আল আনসারী কারবালা প্রান্তরে যান। সেখানে তাঁর বুকফাটা ক্রন্দন এবং সাইয়্যেদুশ শুহাদা হযরত ইমাম হুসাইনের কবরপার্শ্বে তাঁর আকুলতার ভাষাগুলো যে কোন মুমিনের অন্তরে শোকের আগুন জ্বালিয়ে দেয়। বৃদ্ধ বয়সে দৃষ্টিশক্তি হারানো এ মহান সাহাবী তাঁর বন্ধু ইমাম হুসাইনের কবরে আছড়ে পড়েন এবং তিনবার ইয়া হুসাইন বলে ডাক দেন। অতঃপর তিনি পরম ভক্তির সাথে হুসাইন (আ.)-এর স্মৃতিসমূহ স্মরণ করতে থাকেন। আর এ ঘটনার ব্যাপারে রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর ভবিষ্যদ্বাণীসমূহ উচ্চারণ করতে থাকেন।

এভাবে আযাদারীর মজলিসের বিস্তার ঘটতে ঘটতে গোটা দুনিয়া জুড়ে ইমাম হুসাইন (আ.)-এর স্মরণে শোক ও মাতম এক আদর্শে রূপ নেয়। ইসলামের রাহে শহীদ সম্রাট ইমাম হুসাইন (আ.) ও তাঁর একনিষ্ঠ সঙ্গীসাথীবৃন্দের শোকে মুহ্যমান মুমিনদের সে ঢল আজও অব্যাহত আছে, শত সহস্রগুণ বেশি ভক্তকুল সব বাঁধা অতিক্রম করে এ যিয়ারতের মিছিলে অংশগ্রহণ করে থাকে। এ শোক পালনের মধ্যে হক সবসময় সমহিমায় উদ্ভাসিত হওয়ার এবং বাতিল উৎপাটিত হওয়ার দরজা উন্মুক্ত হয়েছে। যার প্রভাবে ধর্মদ্রোহী উমাইয়্যারা ও ইয়াযীদরা ধর্মব্রতী সেজে আর ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারেনি। পাশাপাশি হুসাইনী হয়ে বেঁচে থাকার প্রবল আকুতি নিয়ে অনুষ্ঠিত এসব আযাদারী অনুষ্ঠান এমন সব অসাধ্য সাধন করার অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে যে, স্বীকার করতে হবে, ইসলামের ইতিহাসে অনেক নজীরবিহীন বীরত্বগাথা মহাকাব্যের জন্ম হয়েছে এখান থেকেই। মুমীনদের আত্ম পরিচয় খুঁজে পাওয়ার এবং উন্নত মনোবৃত্তির সকল শিক্ষা নিহিত রাখা হয়েছে আশুরার শোক মাতমের মধ্যে। যতদিন এ মহান ইমামের মহান আত্মত্যাগের স্মরণে অন্তরে ভক্তি ও ভালবাসা থাকবে, আর জিহ্বায় থাকবে তার সাহসী প্রকাশ, ততদিন এ রক্তাক্ত শাহাদাতের বাণী সমুন্নত ও চিরন্তন থাকবে, পৌঁছে যাবে পরবর্তী বংশধরদের কাছে।

তথ্যসূত্র

১. যাখায়িরুল উকবা, পৃ. ১১৮

২. তাহযিবুত তাহযিব, ইবনে হাজার, ২য় খণ্ড; মাজমাউল হায়সামি, ৯ম খণ্ড; কানযুল উম্মাল, ৭ম খণ্ড (এ মর্মে ভাবার্থ বর্ণিত হয়েছে)

৩. আল আদাব মিন সহীহ বুখারী; সহীহ তিরমিযী, ২য় খণ্ড, পৃ. ৩০৬; মুসনাদে আহমাদ ইবনে হাম্বাল, ২য় খণ্ড; মুসনাদে আবি দাউদ, ৮ম খণ্ড

৪. কানযুল উম্মাল, ৬ষ্ঠ খণ্ড, পৃ. ২২১; সহীহ তিরমিযী, ২য় খণ্ড, পৃ. ৩০৬; মুসনাদে আহমাদ ইবনে হাম্বাল, ৩য় খণ্ড; হিলইয়াতু আবু নাঈম, ৫ম খণ্ড; তারিখে বাগদাদ, ৯ম খণ্ড; তাহযিবুত তাহযীব, ইবনে হাজার, ৩য় খণ্ড; সহীহ ইবনে মাজাহ; মুস্তাদরাকুস সাহীহাইন, ৩য় খণ্ড; হিলইয়াতুল আউলিয়া, আবু নাঈম, ৪র্থ খণ্ড

৫. সহীহ তিরমিযী, ২য় খণ্ড; ফায়যুল কাদীর, ১ম খণ্ড; মাজমাউল হায়সামি, ৯ম খণ্ড

৬. সহীহ তিরমিযী, ২য় খণ্ড; সহীহ ইবনে মাজাহ, ফাযায়েলে আসহাবুন নবি অধ্যায়; বুখারী ফি আদাবুল মুফরাদ

৭. আস সায়েরুল আউয়াল, আবদুল বাকি নাঈম আল আযহারী, মিশর থেকে মূদ্রিত।

৮. আস সায়েরুল আউয়াল গ্রন্থে তারিখে ইবনে আসাকির এর উদ্ধৃতি দিয়ে বর্ণিত হয়েছে।

৯. আল ইস্তিয়াব, ১ম খণ্ড, পৃ. ১৪৪; আদাবুল মুফরাদ; বুখারী; আল ইসাবাহ্, ইবনে হাজার আসকালানী, ২য় খণ্ড; কানযুল উম্মাল, ৭ম খণ্ড, পৃ. ১০৪

১০. আস সায়েরুল আউয়াল, আবদুল বাকি নাঈম আল আযহারী, মিশর থেকে মূদ্রিত

১১. সহীহ বুখারী, বাদউল খাল্‌ক অধ্যায়; সহীহ তিরমিযী, ২য় খণ্ড, পৃ. ৩০৭; মুসনাদে আহমাদ ইবনে হাম্বাল, ৩য় খণ্ড, পৃ ২৬১; কানযুল উম্মাল, ৭ম খণ্ড, পৃ. ১১০; মাজমাউ হায়সামি, ৯ম খণ্ড

১২. আত্-তামবিহ্ ওয়াল্ আশরাফ, পৃ. ২৮২-২৮৩; মাকতাবাতু খাইয়াত প্রকাশনী, বৈরুত, ১৯৬৫

১৩. তারীখে ইয়াকুবী, ২য় খণ্ড

১৪. তুহাফুল উকুল, পৃ. ২৪১

১৫. মুরুজুয যাহাব, ৩য় খণ্ড

১৬. নাসেখুত তাওয়ারীখ, হযরত সাজ্জাদ (আ.)-এর জীবনী পর্ব, ৩য় খণ্ড, পৃ. ২৪-২৬

১৭. প্রাগুক্ত, (এ অংশটুকু ইবনে আসীরের সূত্র থেকে বর্ণনা করা হয়েছে)

১৮. সুয়ূতী তাঁর তারীখুল খুলাফা গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন যে, মু‘আবিয়া জোর খাটিয়ে ইয়াযীদের জন্য বাইয়াত আদায় করেন।

১৯. ফায্‌ল খারাযমী, ২য় খণ্ড, পৃ. ৫৯

২০. মু‘আবিয়া কর্তৃক ইয়াযীদকে যুবরাজ ঘোষণার কাহিনী ঐতিহাসিক মাসউদী তাঁর মুরুজুয যাহাব গ্রন্থের ৩য় খণ্ডের ২৭ পৃষ্ঠায় সবিস্তারে বর্ণনা করেছেন।

২১. উল্লেখ্য, আহনাফ ইবনে কায়েস ইরাকের অধিবাসী ছিলেন।

২২. George Jordac, Tragedy of Karbala.

২৩. নাসেখুত তাওয়ারীখ

২৪. প্রাগুক্ত

২৫. প্রাগুক্ত

২৬. তুহাফুল উকুল

২৭. নাসেখুত তাওয়ারিখ গ্রন্থের বর্ণনা থেকে সংক্ষিপ্ত ও উৎকলিত করা হয়েছে।

২৮. মুরুজুয যাহাব, মাসউদী, ৩য় খণ্ড, পৃ. ৭৩, বৈরুত থেকে মূদ্রিত।

২৯. সিয়াসাতুল হুসাইনিয়া, আল্লামা কাশেফুল গেতা

৩০. লুহুফ, সাইয়্যেদ ইবনে তাউস, পৃ. ১৩

৩১. নাসেখুত তাওয়ারীখ

৩২. তারীখে ইবনে আসীর, ৩য় খণ্ড, পৃ. ২৮৮

৩৩. লুহুফ, সাইয়্যেদ ইবনে তাউস, পৃ. ৩৫; তাযকিরাহ, পৃ. ২৫০

৩৪. প্রাগুক্ত, পৃ. ২৮; কামেলুয যিয়ারাত, পৃ. ৭৫

৩৫. তারীখে ইবনে আসীর, ৩য় খণ্ড, পৃ. ২৮৮

৩৬. বিহারুল আনওয়ার, ৪৪তম খণ্ড, পৃ. ২৯৩

৩৭. কামেলুয যিয়ারাত, পৃ. ১০৯

Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.