সুরা যুমার ৭১-৭২ তাফসির

কাফেরদেরকে দলে দলে জাহান্নামের দিকে হাঁকিয়ে নেয়া হবে। তারা যখন সেখানে পৌছাবে, তখন তার দরজাসমূহ খুলে দেয়া হবে এবং জাহান্নামের রক্ষীরা তাদেরকে বলবে, তোমাদের কাছে কি তোমাদের মধ্য থেকে নবীগণ আগমন করেনি, যারা তোমাদের কাছে তোমাদের পালনকর্তার আয়াতসমূহ আবৃত্তি করত এবং এ দিনের সাক্ষাতের ব্যাপারে সতর্ক করত? তারা বলবে,  হ্যাঁ (তারা এসেছিল। কিন্তু আমরা তাদের কথা শুনিনি বরং তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করেছি) কিন্তু কাফেরদের প্রতি শাস্তির হুকুমই বাস্তবায়িত হয়েছে।” (৩৯:৭১)

তাদেরকে বলা হবে, তোমরা জাহান্নামের দরজা দিয়ে প্রবেশ কর, সেখানে চিরকাল অবস্থানের জন্য। কত নিকৃষ্ট অহংকারীদের আবাসস্থল।” (৩৯:৭২)

গত আসরে আমরা বলেছি, কিয়ামতের দিন বিভিন্ন সাক্ষীর উপস্থিতিতে মানুষের আমলনামা নিয়ে আল্লাহর আদালতে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে সম্পূর্ণ ন্যায়বিচারের ভিত্তিতে প্রতিটি মানুষ জান্নাতে নাকি জাহান্নামে যাবে তা নির্ধারিত হবে। এরপর এই দুই আয়াতে বলা হচ্ছে: আল্লাহর আদালতের রায় ঘোষিত হওয়ার পর জাহান্নামবাসীকে দলে দলে তাদের চিরস্থায়ী আবাসের দিকে নিয়ে ধাক্কা দিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে।  তারা জাহান্নামের দরজায় পৌঁছোলে সেখানকার প্রহরী ফেরেশতারা তাদেরকে ভর্ৎসনা করে বলবে: তোমাদের কাছে কি তোমাদের মধ্য থেকে নবী-রাসূল আসেননি এবং তারা কি আল্লাহর আয়াত পাঠ করে আজকের দিনের ব্যাপারে তোমাদেরকে সতর্ক করেননি? তাহলে কেন তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করেছো এবং এসব সতর্কবার্তায় কান দাওনি? যা খুশি তাই করার জন্যই কি তোমরা আল্লাহর দাওয়াতের বাণী প্রত্যাখ্যান করেছিলে? আজকের এই করুণ পরিণতিতে তোমরা কেন পতিত হলে বলে তোমাদের মনে হয়?

এ অবস্থায় কাফেরদের পক্ষে সত্য স্বীকার করা ছাড়া অন্য কোনো উপায় থাকবে না। ফেরেশতাদের সঙ্গে তাদের এ কথোপকথোন শেষ হয়ে গেলে তাদেরকে জাহান্নামে প্রবেশ করতে বলা হবে। এখানে উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে: আল্লাহ বলছেন, জাহান্নাম অহংকারীদের জন্য কত নিকৃষ্ট আবাসস্থল। এই কথা থেকে বোঝা যায়, আল্লাহ ও তাঁর রাসূলকে প্রত্যাখ্যান করার পেছনে মূল কারণ ছিল অহংকার। তারা পার্থিব জীবনে সব সময় সত্যের দাওয়াতের সামনে আত্মম্ভরিতা দেখাত এবং তারা জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত এই অহংকারি মনোভাব পরিত্যাগ করেনি বলে আজ তাদেরকে জাহান্নামে প্রবেশ করতে হয়েছে।

এই দুই আয়াতের শিক্ষণীয় দিকগুলো হলো:

১- দুনিয়ার জীবনে যারা অহংকার করে নবীদের বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেছে কিয়ামতের দিন তারা অপমানিত হবে। তাদেরকে ধাক্কা মেরে জাহান্নামে ঢুকিয়ে দেয়া হবে।

২- পার্থিব জীবনে আল্লাহর আজাব সম্পর্কে সতর্ক না করে কাউকে পরকালে জাহান্নামে পাঠানো হবে না। সেদিন অপরাধীরা একথা স্বীকার করবে যে, তারা সত্যের দাওয়াত পেয়েও প্রত্যাখ্যান করার কারণে এই ভয়াবহ পরিণতির সম্মুখীন হয়েছে।

৩- মানুষ তার কুফরের কারণেই আল্লাহর আজাবে নিপতিত হবে এবং কুফরের মূলে রযেছে সত্যের সামনে অহংকার ও আত্মম্ভরিতা।

{ https://parstoday.com/bn/radio/programs-i87796 }

আবু আবদুল্লাহ্, তাঁর পরদাদাদের  থেকে বলেছেন: ‘আগুনের (জাহান্নামের) জন্য সাতটি দরজা ছিল। একটি দরজা যেখান থেকে ফারাওলা, হামান এবং কারুন প্রবেশ করবে; এবং একটি দরজা যেখান থেকে মুশরিকরা এবং কাফিররা যারা চোখের পলকেও আল্লাহর প্রতি ঈমান আনেনি তাদের ভিতরে প্রবেশ করবে; এবং একটি দরজা যেখান থেকে উমাইয়া গোত্র প্রবেশ করবে, এবং এটি বিশেষত তাদের জন্য, এবং এটি আগুনের দরজা, এবং এটি সাকার দরজা, এবং এটি হাওইয়ার দরজা যা সত্তরটি শরতের জন্য তাদের সেদ্ধ করবে (বছর)।

তাই প্রতিবার এটি তাদের সত্তরটি শরৎকালে পুড়িয়ে দেয়, এটি তাদের অগ্নিশিখা দিয়ে জ্বালিয়ে দেয় এবং সত্তরটি শরতের জন্য তাদের ফেলে দেয়। তারপর এটি সত্তরটি শরৎকালের জন্য তাদের সাথে এটি করতে থাকবে, অনন্তকাল ধরে এবং অনন্তকাল ধরে; এবং এমন একটি দরজা যাতে তারা যাবে যারা  আমাদেরকে ঘৃণা করে, এবং আমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে, এবং আমাদেরকে অপমানিত করে, এবং তাদের জন্য সবচেয়ে বড় দরজা হবে এবং যাতে থাকবে সবচেয়ে তীব্র তাপ ‘।

মুহাম্মদ আল-ফজল আল-রাজকী বলেন, ‘তাই আমি আবু আবদুল্লাহ্ সওয়াসকে বলেছিলাম,’ যে দরজাটি আপনার পিতা ও তার দাদা ও পরদাদা-দাদি থেকে উল্লেখ করেছেন, যেখান দিয়ে উমাইয়া গোষ্ঠী প্রবেশ করবে, তারাই কি বহুখোদায় বিশ্বাসী হয়ে মারা যাবে? , অথবা যাদের মধ্য থেকে আল-ইসলামকে উপলব্ধি করেছেন তাদের কাছ থেকে? ‘।

তাই হেসস বলেছেন: ‘না। আপনি কি তাদের বলতে শুনেননি: ‘এবং একটি দরজা যা থেকে মুশরিকরা এবং কাফিররা প্রবেশ করবে? সুতরাং এটি সেই দরজা যা থেকে প্রত্যেক মুশরিক, এবং প্রত্যেক কাফির প্রবেশ করবে, যারা হিসাব দিবসে বিশ্বাস করে না এবং এটিই শেষ দরজা যেখান থেকে উমাইয়া গোত্র প্রবেশ করবে, কারণ এটি আবু সুফিয়ান এবং মুয়াবিয়ার জন্য, এবং বিশেষ করে মারওয়ানের বংশধর। তারা সেই গেট থেকে ঢুকবে। তাই আগুন তাদের ধ্বংসের সাথে ধ্বংস করবে, তাদের কথা শোনা হবে না। না তারা এতে বাস করবে, না তারা মরবে ’।

সাওয়াব আল-আমাল বইয়ে, তার চেইন দ্বারা আবু আল-জারউদের কাছে গিয়ে তিনি বলেছিলেন, ‘আমি আবু জাফর (আ:)কে বলেছিলাম,’ আমাকে -প্রথম যে আগুনে প্রবেশ করবে সে সম্পর্কে আমাকে কি বলবেন? ‘ এবং প্রথম ইবলিস ডানদিকে একজন মানুষ (আবু বকর) এবং ইবলিসের বাম দিকে একজন (উমর) থাকবে।

{https://hubeali.com/books/English-Books/TafseerHub-e-Ali/CH39_SuraAlZumar_Verses45-75.pdf

পৃষ্ঠা ৩৪। তাফসিরে হুব্বে আলী}

Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.