কিছুই চাইনা শুধু আমার নিকটাত্মীয়দের প্রতি ভালবাসা ছাড়া

قُل لَّا أَسْأَلُكُمْ عَلَيْهِ أَجْرًا إِلَّا الْمَوَدَّةَ فِي الْقُرْبَى
“কুল লা আসআলুকুম আলাইহি আজরান ইল্লাল মাওয়াদ্দাতা ফিল কুরবা”
বলুন, (আমার প্রচারিত রিসালাতের) প্রতিদানে (তোমাদের থেকে) কিছুই চাইনা শুধু আমার নিকটাত্মীয়দের প্রতি ভালবাসা ছাড়া”
— আল কুর’আন, সুরা: শূরা, আয়াত: ২৩
রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাঁর জীবনভর অক্লান্ত পরিশ্রম ও ত্যাগ তিতিক্ষার দ্বারা মুসলমানদের জন্য মহান আল্লাহ পাকের বাণী প্রচার ও প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তাদের যে চিরকালীন মুক্তির ব্যাবস্থা করেছিলেন, মুসলমানদের তরফ থেকে তার প্রতিদান কী হতে পারে তা অনেকে জানতে চাইলে মহান আল্লাহ পাক উপরোক্ত আয়াত নাযিল করে রিসালাতের প্রতিদান স্বরুপ মুসলমানদের উপর রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর পরিবার পরিজন ও বংশধরদের ভালবাসাকে ফরজ করে দিয়েছেন।
অতঃপর ‘উম্মতের’ তরফ থেকে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে প্রদত্ত প্রতিদানসমূহঃ
— স্বয়ং রাসূলুল্লাহ সাঃ {তাঁর জন্য আমার দু’হাত কুরবান হোক} এর মৃত্যু শয্যায় তাঁর নির্দেশ অমান্য করা ও তাঁর সাথে বেয়াদবী করে তাঁকে ‘প্রলাপকারী’ বলে অপবাদ দেয়া!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর সম্মানিত কণ্যা হযরত মা ফাতিমা (আঃ) এর ঘরে আক্রমন করা ও আগুন দেয়া!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর অনাগত নাতি ও হযরত মা ফাতিমা (আঃ) এর গর্ভে থাকা শিশু হযরত মুহসিন (আঃ) কে শহীদ করা!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর ওফাতের ছয় মাসের মধ্যেই তাঁর কলিজার টুকরা সম্মানিতা কণ্যা হযরত মা ফাতিমা (আঃ) কে শহীদ করা!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর চাচাতো ভাই ও জামাতা হযরত ইমাম আলী (আঃ) কে গলায় দড়ি দিয়ে টেনে নিয়ে যাওয়া!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কর্তৃক হযরত মা ফাতিমা (আঃ) কে প্রদত্ত সম্পদ ফাদাক বাগানকে তাঁর থেকে অন্যায্যভাবে জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়া!
— হযরত ইমাম আলী (আঃ) এর বিরুদ্ধে অন্যায়ভাবে তিনটি বড় যুদ্ধ (জাঙ্গে জামাল, সিফ্ফিন, নাহরাওয়ান) চাপিয়ে দেয়া।
— হযরত ইমাম আলী (আঃ) কে নামাজে সিজদারত অবস্থায় বিষাক্ত তরবারির আঘাতে হত্যা করা!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর কলিজার টুকরা নাতি হযরত ইমাম হাসান (আঃ) কে বিষ প্রয়োগে হত্যা ও তাঁর লাশের উপর অসংখ্য তির নিক্ষেপ!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর প্রিয় ভাতিজা হযরত মুসলিম বিন আকিল (আঃ) ও তাঁর ছোট দুটি সন্তানকে কূফাতে নির্দয়ভাবে জবাই করে শহীদ করা!
— কারবালায় রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর নয়নেরমণি নাতি হযরত ইমাম হুসাইন (আঃ) কে তাঁর ছয়মাসের দুধের শিশু ও রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর পরিবারের আরও পনেরোজন সম্মানিত সদস্য সহ অভুক্ত, তৃষ্ণার্ত অবস্থায় নির্মমভাবে জবাই করে শহীদ করা!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর প্রানপ্রিয় নাতনী হযরত যাইনাব (আঃ) কে নবী পরিবারের অন্যান্য সম্মানিত মহিলা সদস্যা সহ দড়ি বেঁধে বন্দী করে কারবালা থেকে কূফা ও কূফা থেকে সিরিয়া পর্যন্ত পায়ে হাটিয়ে নিয়ে যাওয়া ও সিরিয়ার জেলে বন্দী করে রাখা এবং রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর বংশধর ও ইমাম হুসাইন (আঃ) এর তিন বছরের আদরের ছোট্ট কণ্যা রুকাইয়া (আঃ) কে ইয়াযিদের কারাগারে থাকা অবস্থায় শহীদ করা!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর পবিত্র বংশধর আহলে বাইতের একে একে সকল ইমামগণকে (আঃ) বিষপ্রয়োগে শহীদ করা!
— রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর বংশের অসংখ্য সাইয়্যেদকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন স্থানে নৃশংসভাবে শহীদ করা! …………..
***** ইমাম হুসাইন (আঃ) এর পুত্র হযরত ইমাম যাইনুল আবিদিন (আঃ) বলেছেনঃ
“পবিত্র কুর’আনে আমাদের (নবী পরিবার) প্রতি ভালবাসাকে ফরজ করা হয়েছে! কিন্তু পবিত্র কুর’আনে আমাদেরকে ঘৃনা করার নির্দেশও যদি থাকত, তবুও হয়ত আমাদের উপর এতটা জুলম করা হতনা!”

Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.