সাহাবীর লাশ চুরি: জড়িতদের পরিণতি ভোগ করতে হবে

সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কের কাছে বিশ্বনবী (সা.)এর একজন সাহাবীর কবরের অবমাননার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইরান। তেহরান বলেছে, যারা এ ধৃষ্ঠতাপূর্ণ কাজ করেছে তাদেরকে এর পরিণতি ভোগ করতে হবে।

সিরিয়ার উগ্র ওয়াহাবি বিদ্রোহীরা সম্প্রতি রাজধানী দামেস্কের কাছে বিশ্বনবী (সা.)’র সাহাবী ও আমিরুল মু’মিনিন হযরত আলী (আ.)’র অন্যতম সেনাপতি শহীদ হুজর ইবনে উদাই আল কিন্দি (রা.)-র মাজার ভেঙে দিয়েছে এবং কবর খুঁড়ে তাঁর অক্ষত ও রক্তমাখা লাশ অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছে।

ইরানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আব্দুল্লাহিয়ান এ সম্পর্কে বলেছেন, এই অবমাননাকর কাজে জড়িতদের এমন শিক্ষা দেয়া হবে যে, তারা এর জন্য অনুতপ্ত হবে। তিনি এসব কুলাঙ্গারকে ইহুদিবাদী ইসরাইলের অনুচর হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, ইহুদিবাদীরা এর আগে অধিকৃত ফিলিস্তিনে বহু মুসলিম মনিষীর মাজার ধ্বংস ও লাশের অবমাননা করেছে।

দামেস্কের মাজার অবমাননার প্রতিবাদে ইরানের পবিত্র নগরী কোমের ইসলামী ধর্মতত্ত্ব কেন্দ্রের সব ক্লাস শনিবার বন্ধ রেখেছেন শিক্ষকরা। ইসলামী ধর্মতত্ত্ব কেন্দ্রর ছাত্র-শিক্ষকরা ঐ ঘটনার প্রতিবাদে আজ  বিক্ষোভ মিছিল করেছেন।

শহীদ হুজর ইবনে উদাই আল কিন্দি ইসলামের শত্রুদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি জিহাদে অংশ নিয়ে মুসলিম বাহিনীর বিজয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। ৬৬০ খ্রীস্টাবে  উমাইয়া শাসক মুয়াবিয়ার নির্দেশে বিদ্রোহের শাস্তি হিসেবে এক প্রহসনের বিচারে হুজরকে তাঁর পুত্র ও কয়েকজন সঙ্গীসহ শহীদ করা হয়।

সূত্র: রেডিও তেহরান, ৪ মে ২০১৩

Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.