অনাহারি কে আহার দান

🌑🌑🌚🌚🌚অনাহারি কে আহার দান (প্রসঙ্গ ইফতারী ও সেহরী)🍎🍊🍉🍇🍒🍓🍅🍆🍞পর্ব: ০৩

আমিরুল মুমিনীন আলী (আ.),হযরত ফাতেমা (আ.) এবং ইমাম হাসান ও ইমাম হুসাইন আর তাদের দাসী‘ফিদ্দা’ তাদের মানত মোতাবেক তিন দিন রোজা রেখেছিলেন।

প্রথম রাত্রে যখন তারা সকলে ইফতারী করতে মনস্থ করেন সে সময়ে একজন ভিক্ষুক দরজায় কড়া নাড়লো। হযরত আলী তার নিজের ইফতারীর অংশটুকু ভিক্ষুককে দিয়ে দিলেন। হযরত আলীকে অনুসরণ করে অন্যেরাও তাদের নিজ নিজ অংশ ভিক্ষুককে দান করলেন। অবশেষে তারা সকলে পানি পান করে রোজা ভঙ্গ করলেন। আবার দ্বিতীয় রাত্রে একজন ইয়াতিম এসে দরজায় হাঁক দিল। আবারো তারা সকলে তাদের ইফতারী সেই ইয়াতিমকে দান করে দিলেন। এরকম তৃতীয় রজনীতে একজন কয়েদী কিছু সাহায্য প্রার্থনা করলে এবারেও তারা তাদের ইফতারীর সবটুকুই তাকে দিয়ে দিলেন।

এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে“সূরা আল ইনসান” অবতীর্ণ হয়।( আমালী,সাদুক,পৃ. 212-216। কাশফুল গুম্মাহ্,1ম খণ্ড,পৃ. 413-417।)

নিম্নের এ আয়াতটিতে ঐ সকল মহান ব্যক্তিদের আত্মত্যাগ ও দানের প্রতি ইঙ্গিত প্রদান করা হয়েছে।
) وَ يُطْعِمُوْنَ اْلْطَّعَامَ عَلَى حُبِّهِ مِسْكِيْنًا وَ يَتِيْمًا وَ أَسِيْرًا(

অর্থাৎ“ তারা আল্লাহর ভালবাসায় মিসকিন,ইয়াতিম ও কয়েদীকে খাদ্য দান করেন।” (আল ইনসান : 8।)

🌑🌑🌚🌚🌚🌑🌑🌚🌚🌚🌑🌑🌚🌚🌚🌑🌑🌚🌚🌚

Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.